জনতা ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষা আবার

বৈচিত্র ডেস্ক :  জনতা ব্যাংকের নির্বাহী কর্মকর্তা নিয়োগের লিখিত পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে তা বাতিল করে রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে দ্রুত ওই পরীক্ষা আবারও নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার বিচারপতি জুবায়ের রহমান চৌধুরী ও বিচারপতি মোহাম্মদ ইকবাল কবীরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ সংক্রান্ত রুলের চূড়ান্ত শুনানি শেষে এ রায় দেন।আদালতে রিটের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী জ্যোতির্ময় বড়ুয়া ও সুপ্রকাশ দত্ত অমিত। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক অনুষদের ডিনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মোমতাজ উদ্দিন ফকির ও মজিবর রহমান সম্রাট।

রায়ের পর আইনজীবী সুপ্রকাশ দত্ত অমিত বলেন, ‘ওই লিখিত পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়েছে বলে প্রমাণ হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্ট জনতা ব্যাংকের নির্বাহী কর্মকর্তা নিয়োগে অনুষ্ঠিত ওই লিখিত পরীক্ষা বাতিল ঘোষণা করেছেন। পাশাপাশি দ্রুত নতুন করে লিখিত পরীক্ষা নিতে ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটির চেয়ারম্যানকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’গত বছর ২১ এপ্রিল অনুষ্ঠিত ওই লিখিত পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের প্রেক্ষাপটে ১৫ জন পরীক্ষার্থী রিট করেছিলেন। প্রাথমিক শুনানি নিয়ে গত বছর ২২ মে হাইকোর্ট ওই পরীক্ষার ওপর নিষেধাজ্ঞার অন্তর্বর্তীকালীন আদেশ দেন। একই সঙ্গে প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে ওই পরীক্ষা কেন বাতিল ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন। চূড়ান্ত শুনানি নিয়ে এ রুল যথাযথ ঘোষণা করে আজ এ রায় দেওয়া হয়।২০১৬ সালের ১০ মার্চ ৮৩৪টি পদের বিপরীতে নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি দেয় ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটি। এই পরীক্ষা নেওয়ার দায়িত্ব পায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ। গত ২৪ মার্চ সকাল ও বিকালে প্রাথমিক বাছাই (প্রিলিমিনারি) পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। আড়াই লাখ প্রার্থী তাতে অংশ নেন। এর মধ্যে উত্তীর্ণ হন ১০ হাজার ১৫০ জন। পরে ২১ এপ্রিল ৯ হাজার ৪০০ জন লিখিত পরীক্ষায় অংশ নেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *