চলচ্চিত্র শিল্পীরা পাবেন কোরবানির মাংস

বিনোদন ডেস্ক :  গত দুই বছর ধরে এফডিসিতে অসচ্ছল শিল্পীদের জন্য গরু কোরবানি দিয়েছেন নায়িকা পরী মণি। নিজের হাতে তিনি সেই মাংস বিলি করেছেন শিল্পীদের মাঝে। এবারের ঈদে পশু কোরবানির উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি। তবে শুধু অসচ্ছল শিল্পী নয়, কোরবানির মাংস পাবে সচ্ছল ও অসচ্ছল সব চলচ্চিত্র শিল্পীই, সাথে থাকবে সেমাই। এমনটাই জানিয়েছেন সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান।

জায়েদ খান এনটিভি অনলাইনকে বলেন, ‘আমরা এ বছর শিল্পী সমিতির উদ্যোগে এফডিসিতে তিনটি গরু কোরবানি দেওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি। এই গরুর মাংস আমাদের চলচ্চিত্র শিল্পীদের মাঝে বিতরণ করা হবে, সাথে থাকবে সেমাই। আমরা চাই চলচ্চিত্রের সব শিল্পী সুন্দরভাবে ঈদ পালন করুক। সবার সাথে এক হয়ে আমরাও ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে চাই।’

শিল্পীদের এফডিসি থেকে মাংস সংগ্রহ করতে হবে না জানিয়ে জায়েদ বলেন, ‘আমরা সব শিল্পীর বাসায় মাংস, সেমাই, চিনি ও পোলাওয়ের চাল পাঠিয়ে দেব। কাউকে এফডিসিতে এসে মাংস সংগ্রহ করতে হবে না। আমরা আমাদের তালিকাভুক্ত সব শিল্পীর বাসায় সেসব জিনিস পাঠিয়ে দেব। এমন কি আমাদের তালিকা ভুক্ত নন এমন কয়েকজন শিল্পী আছেন, যাঁদের সবাই এক্সট্রা শিল্পী বলেন, তাঁদের মাঝেও আমরা মাংস বিতরণ করব।’

শিল্পীদের মধ্যে অনেকে আছেন একাধিক গরু কোরবানি দিয়ে থাকেন, এমন শিল্পীদেরও কেন মাংস বিতরন করতে হবে, এ বিষয়ে জানতে চাইলে জায়েদ খান বলেন, ‘আসলে ছোটবেলা থেকেই দেখে আসছি ঈদের দিন মাংস বিতরণ হয়। সেই সময় যাদের বাসায় গিয়েছি তারাও কিন্তু আমাদের বাসায় মাংস দিয়ে যেত। এটা আসলে এক ধরনের আনন্দ, এটা হচ্ছে একটি কারণ। আরেকটা বড় কারণ হচ্ছে আমাদের শিল্পীদের মধ্যে এমন শিল্পী আছেন, যাঁরা কোরবানি দিতে পারেন না, আবার কারো কাছে তিনি চাইবেনও না। যদি এমন শিল্পীর বাসায় আমরা মাংস পাঠাই তা হলে তিনি লজ্জা পাবেন, মন খারাপ করবেন। যে কারণে আসলে আমরা সবার বাসায় মাংস-সেমাই পাঠাব। শিল্পীরা আমরা সবাই সমান।’

জায়েদ আরো বলেন, ‘আমরা ঈদের দিন নামাজের পর গরু কোরবানি করব। তারপর মাংস মেপে প্যাকেট করব। তিনটি পিকআপ ট্রাক রাখা থাকবে, সেই হিসেবে মাংস সব শিল্পীর বাসায় চলে যাবে। আমাদের কাছে সব শিল্পীর বাসার ঠিকানা আছে। বিভিন্ন কারণে সবার বাসায় আমাদের এমনিতেও যেতে হয়।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *