স্ট্যাচু অব লিবার্টি, মুক্তির আদর্শের প্রতীক

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশন কভার করতে নিউ ইয়র্ক যাওয়া। কিন্তু নিউ ইয়র্ক যাব স্ট্যাচু অব লিবার্টি দেখতে যাব না তাই কি হয়? এবার আবার সহকর্মী সাইফুল পরিবার নিয়ে গেছে। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশন শেষ। এক দিন সবাই মিলে স্ট্যাচু অব লিবার্টি দেখতে বের হলাম। ছোট ভাই পাভেল আমাদের গাইড।

জ্যাকসন হাইটস ৭৪ স্ট্রিট থেকে আর’ ট্রেনে করে হোয়াইট হল স্ট্রিটে নেমে পায়ে হাঁটা পথ ধরে আসতে হয় ব্যাটারি পার্কে। সেখান থেকেই ফেরি ছেড়ে যায় লিবার্টি আইল্যান্ডের উদ্দেশ্যে। দেশি-বিদেশি অসংখ্য মানুষ স্ট্যাচু অব লিবার্টি দেখার জন্যে টিকেট কাটতে লম্বা লাইনে দাঁড়িয়ে আছে। আমাদের লাইনে দাঁড়াতে হলো না। পাভেল লাইনে দাঁড়িয়ে আমাদের সকলের টিকিট কেটে আনল।

স্ট্যাচু অব লিবার্টির সামনে লেখক

আমরা সোজা ফেরির উপরের ডেকে চলে গেলাম। ফেরি তির তির করে এগিয়ে চলেছে। দেখতে দেখতে খুব কাছে চলে এলো। ফেরি থেকেই সেলফি ছবি তোলা শুরু। ফেরি থেকে নেমে যে যার ইচ্ছে মত করে ঐতিহাসিক নিদর্শনের সাথে ছবি, সেলফি তুলছে। কেউ পরিবারের সাথে, কেউ বান্ধবির সাথে, কেউ আবার ফেসবুকে লাইভে আছে। সুন্দর এক দ্বীপ লিবার্টি আইল্যান্ড। দ্বীপের সবদিক থেকে ‘স্ট্যাচু অব লিবার্টি’ দেখা যায়। মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে বিশাল মূর্তি। সবুজাভ রঙের উড়ন্ত গাউন পড়ে থাকা এক নারীর অবয়ব ‘স্ট্যাচু অব লিবার্টি’। মাথায় সূচালো কাঁটাওয়ালা মুকুট; যা কিনা সাতটি মহাদেশ ও সাত সমুদ্রের প্রতীক।

ভাস্কর্যটির বাম হাতে রয়েছে একটি বই। যাতে রোমান সংখ্যায় খোদাই করে লেখা রয়েছে ‍‌আমেরিকার স্বাধীনতার দিনক্ষণ ৪ জুলাই, ১৭৭৬ সাল।
ডান হাতে উঁচিয়ে ধরা একটি মশাল। পায়ে কাছে পরে থাকা ছেঁড়া শেকল মুক্তির কথা বলছে। এই ভাস্কর্যটি সাম্য, স্বাধীনতা এবং মুক্তির প্রতীক হিসেবে দাঁড়িয়ে আছে।

তামার তৈরি ৯৩ মিটার উঁচু এই মূর্তিটি ১৮৮৬ সালে ফ্রান্সের জনগণের পক্ষ থেকে উপহার দেয়া হয় আমেরিকাকে। মূর্তিটি আমেরিকান বিপ্লবের সময় প্রতিষ্ঠিত মিত্রতার স্মারক। ১৮৮৪ সালে ফ্রান্সে এই মূর্তি তৈরি করা হয়। এরপর মূর্তিটি কয়েক ভাগে আলাদা করে নিউইয়র্কে জাহাজে করে পাঠানো হয় যেখানে মূর্তিটি পুনরায় স্বরূপে সংযুক্ত করা হয়। ১৮৮৬ সালের ২৮ অক্টোবর হাজার হাজার উল্লসিত দর্শকদের সম্মুখে মূর্তিটি স্থাপন করা হয়।

যুক্তরাষ্ট্র ও ফ্রান্সের মধ্যকার সম্পর্ককে দুই দেশেরই স্বাধীনতা ও মুক্তির আদর্শের একটি প্রতীক দ্বারা সমৃদ্ধ করতে ১৮৬৫ সালের দিকে ফরাসী আইনের অধ্যাপক, রাজনীতিবিদ ও লেখক এডুয়ার্ড দ্য লাবুলে মূর্তিটির পরিকল্পনা করেন। বিশাল আকারের শিল্পকর্মের জন্য খ্যাত শিল্পী ফ্রেদেরিক-অগাস্ট বার্থোল্ডিকে মূর্তিটি তৈরি করার দায়িত্ব দেয়া হয়। একটি মানানসই স্থান নির্বাচনের জন্য বার্থোল্ডি যুক্তরাষ্ট্রে যাত্রা করেন এবং নিউইয়র্ক বন্দরের বেডলো’স আইল্যান্ড (১৯৫৬ সালে দ্বীপটির নামকরণ করা হয় লিবার্টি আইল্যান্ড) নামক একটি ছোট দ্বীপ মূর্তিটির স্থাপনাস্থল হিসেবে নির্বাচন করেন।

যেহেতু মূর্তিটি আমেরিকা ও ফ্রান্সের মধ্যকার একটি যৌথ উদ্যোগ ছিলো এজন্য সিদ্ধান্ত নেয়া হয় যে আমেরিকানরা মূর্তিটির ভিত্তিস্তম্ভ গড়ে তুলবে এবং ফ্রান্সের জনগণ মূর্তি ও তার সংযুক্তকরণের দায়িত্ব নেবে। ফ্রান্সে নগর সরকারগুলোর কাছ থেকে, মূর্তিটির ক্ষুদ্র প্রতিকৃতির বিক্রয়মূল্য থেকে, লটারি থেকে এবং ফ্রান্সের স্কুলের শিশু ও অন্যান্যদের অনুদানের মাধ্যমে মূর্তিটির জন্য অর্থ সংগ্রহ করা হয়। প্রায় বিশ লক্ষ ফ্রাঁ (সে সময় প্রায় চার লক্ষ ডলার সমমান) সংগ্রহ করা হয়। তবে যুক্তরাষ্ট্রে অর্থ সংগ্রহ করাটা তুলনামূলক কঠিন ছিলো। প্রকাশক জোসেফ পুলিৎজার এক্ষেত্রে এগিয়ে আসেন এবং অনুদানের জন্য তার পত্রিকা নিউইয়র্ক ওয়ার্ল্ডে প্রচেষ্টা শুরু করেন। তিনি তার পত্রিকায় সকল অনুদানকারীদের নাম ছাপা শুরু করেন। এমনকি কয়েক পয়সা অনুদান দেয়া স্কুলছাত্রদের নামও সেই তালিকায় অন্তর্ভূক্ত করা হয়। অনুদানের দাতার তালিকা ১ লক্ষ ২০ হাজার ছাড়িয়ে যায় যাদের মধ্যে অনেকেই এক ডলারেরও কম প্রদান করেছিল। এভাবেই আমেরিকানরা মূর্তিটির ভিত্তিস্তম্ভের জন্য আড়াই লক্ষ ডলার অনুদান প্রদান করে।

বার্থোল্ডি মূর্তিটি নির্মাণ করেন- মূর্তিটির পুরো নাম হলো ‘লিবার্টি এনলাইটনিং দ্য ওয়ার্ল্ড’। মূর্তিটি যে তামা থেকে তৈরি সেটা পেটাতে পেটাতে ২.৪ মিলিমিটার পুরুত্বে নিয়ে আসা হয়। ফরাসী প্রকৌশলী আলেক্সান্ডার-গুস্তাভ আইফেল (আইফেল টাওয়ারের ডিজাইনার) মূর্তিটির জন্য একটি অবকাঠামো তৈরি করেন। অবকাঠামোটি এমনভাবে তৈরি করা হয় যাতে মূর্তিটির তাম্রদেহটি আলাদাভাবেই নড়াচড়া করানো সত্ত্বেও সেটা সোজা দাঁড়িয়ে থাকতে সক্ষম হবে। এজন্যই মূর্তিটি বন্দরের বাতাসে দোল খেতেও সক্ষম।

লেডি লিবার্টি নামেও পরিচিত মূর্তিটি এর ভিত্তিস্তম্ভের পাদদেশ থেকে এর হাতের মশালের মাথা পর্যন্ত ৯৩ মিটার উঁচু। মূর্তিটির গোড়ালি থেকে মাথা পর্যন্ত মূর্তির উচ্চতা ৩৪ মিটার। বছরের পর বছর প্যাটিনেশন নামক এক ধরনের রাসায়নিক বিক্রিয়ার জন্য এর তামার রং সবুজ হয়ে উঠেছে। ১৯৮৪ সালে জাতিসংঘ স্ট্যাচু অব লিবার্টিকে বিশ্বের ঐতিহ্যবাহী স্থানের অন্তর্ভুক্ত করে। দুই বছরব্যাপী মূর্তিটির সংস্কার কাজের পর ১৯৮৬ সালে আবারো দর্শকদের জন্য মূর্তিটি উন্মুক্ত করা হয়। এই বছরই মূর্তিটির ১০০তম বার্ষিকী পালন করা হয়। এই সংস্কারের প্রকল্পের সময়ই নতুন মশালটিতে ২৪ ক্যারেট স্বর্ণের পাতলা আবরণ দেয়া হয়। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে রিজার্ভেশনের মাধ্যমে দর্শনার্থীরা মূর্তিটির ভিত্তিস্তম্ভ ও মাথার তাজের ওপর উঠতে পারেন। অক্টোবরের ২৯ তারিখ থেকে মূর্তির অভ্যন্তরীণ অংশ আরও সংস্কার কাজের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হবে তবে লিবার্টি দ্বীপ দর্শনার্থী ও তাদের ক্যামেরার জন্য উন্মুক্ত রাখা হয়।

স্ট্যাচু অব লিবার্টি ১৮৯২ থেকে ১৯৫৪ সালের মধ্যে কাছাকাছি অবস্থিত এলিস দ্বীপের ফেডারেল অভিবাসন স্টেশন থেকে আগত এক কোটি ২০ লক্ষেরও অধিক অভিবাসীদের যুক্তরাষ্ট্রে স্বাগতম জানায়। পুরোনো অভিবাসন স্টেশনটি এখন একটি জাদুঘরে পরিণত করা ।

এককথায় পুরো দ্বীপটাই অনেক সুন্দর। খাবার দাবারের রকমারি আয়োজন রয়েছে। আছে স্যুভিনির শপ। প্রচুর বৃক্ষরাজি। দ্বীপের চারপাশে কংক্রিটের বাঁধাই। যত দূর চোখ যায় অথৈ জল। সাগরের বুকে বড় বড় পাল তোলা নৌযানগুল দেখতে চমৎকার লাগে। দূরে চোখে পড়ে ম্যানহাটনের বড় বড় দালানের মাঝে মাথা উঁচু করে দাড়িয়ে আছে নতুন ট্রেড সেন্টার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *