পাহাড়ে চাইনিজ কমলা চাষ

বৈচিত্র ডেস্ক : পাহাড়ে চাষ হচ্ছে ছোট জাতের চাইনিজ কমলা। পাহাড়ি কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের উদ্ভাবিত বারি কমলা-২ এখন জেলার বিভিন্ন বাগানে শোভা পাচ্ছে। খেতে মিষ্টি ও সুস্বাদু ছোট জাতের এই বারি কমলা চাষে দিন দিন আগ্রহ বাড়ছে এখানকার বাগানিদের। আম ও লিচুসহ নানান জাতের ফল আর ফসলে দেশজুড়ে সমাদৃত পার্বত্য জেলা খাগড়াছড়ি। এ জেলার নতুন সম্ভাবনা ছোট জাতের চাইনিজ কমলা। জেলার বিভিন্ন বাগানজুড়ে সবুজ পাতার ফাঁকে হলুদ রঙের ছোট ছোট কমলা ঝুলছে। দেশজুড়ে এর ব্যাপক চাহিদা থাকায় এবং পুষ্টিগুণের কারণে বাংলাদেশে এ জাতের কমলা চাষ নিয়ে গবেষণা শুরু করে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বারি)। ২০১১ সালে প্রথম খাগড়াছড়ির পাহাড়ি কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের কয়েকটি বাগানে গবেষণামূলকভাবে বারি কমলা-২ এর চাষ শুরু করা হয়। পাহাড়ের উর্বর মাটি ও অনুকূল আবহাওয়ার কারণে কয়েক বছর ধরে আশানুরূপ ছোট জাতের কমলার ফলন হয়েছে খাগড়াছড়িতে। আর তাই ছোট জাতের কমলার চাষ সম্প্রসারণে উদ্যোগ নিচ্ছে পাহাড়ি কৃষি গবেষণা কেন্দ্র। খেতে সুস্বাদু ও লাভজনক হওয়ায় কৃষি গবেষণা কেন্দ্র থেকে চারা সংগ্রহ করে নতুন নতুন বাগান সৃজন করছেন স্থানীয় বাগানিরা। স্থানীয় বাগানিরা জানান, এই কমলা চাষে খরচ কম ও ভালো ফলন হওয়ায় আমরা লাভবান হতে পারি। পাহাড়ি কৃষি গবেষণা কেন্দ্র, খাগড়াছড়ি মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মুন্সী রাশীদ আহমদ জানান, পরিকল্পনা অনুযায়ী চাইনিজ কমলা বারি-২, সম্প্রসারিত হলে পাহাড়ের বারি কমলা দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানি করা সম্ভব।

বিদেশি ফলের আমদানিনির্ভরতা কমাতে কমলার মতো অন্যান্য ফলের জাত উদ্ভাবনেও দেশীয় গবেষণা প্রতিষ্ঠানগুলোকে গতিশীল করার গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *