জুন থেকে গ্রামীণফোনের সর্বনিম্ন কলরেট হচ্ছে ৫০ পয়সা

বৈচিত্র ডেস্ক:  আগামী জুন মাস থেকে দেশের শীর্ষ মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোনের সর্বনিম্ন কলরেটের সঙ্গে ৫ পয়সা বাড়িয়ে ৫০ পয়সা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।

ফলে অন্যান্য খরচসহ মিনিট প্রতি ৬১ পয়সা গুনতে হবে গ্রামীণফোন গ্রাহকদের।

গ্রাহকরা আগে গ্রামীণফোন ব্যবহার করে সর্বনিম্ন ৪৫ পয়সায় কথা বলতে পারতেন।

তাৎপর্যপূর্ণ বাজার ক্ষমতাধর বা এসএমপির বিধিনিষেধের আওতার অংশ হিসেবে ৫ পয়সা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিটিআরসি।

বর্তমানে প্রতি মিনিটে সর্বনিম্ন কলরেট ৪৫ পয়সা এবং মূল্য সংযোজন কর সংযুক্তের পর যে কোনো মোবাইল অপারেটরে এ কলরেট দাঁড়ায় ৫৪ পয়সা। কিন্তু গ্রামীণফোন ব্যবহারকারীদের জন্য প্রতি মিনিটে ৬১ পয়সা ব্যয় হবে।

এর আগে ৩০ এপ্রিল বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) এক বৈঠকে তাৎপর্যপূর্ণ বাজার ক্ষমতাধর বা এসএমপির বিধিনিষেধের আওতায় গ্রামীণফোনের সর্বনিম্ন কলরেট ৫ পয়সা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়েছে।

কলরেট বাড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে গ্রামীণফোনের ইন্টার কানেকশন বা আন্তঃসংযোগ চার্জও বাড়ানো হয়েছে।

কলরেট বাড়ানোর বিষয়টি শনিবার গ্রামীণফোনকে চিঠির মাধ্যমে জানিয়েছে বিটিআরসি।

গ্রামীণফোনের গড় কলরেট ৭০ পয়সা প্রতি মিনিট। অর্থাৎ কলরেট বাড়ানোর ফলে তা গ্রামীণফোনের গ্রাহকদের ওপর বাড়তি প্রভাব ফেলবে।

তবে বিটিআরসির চেয়ারম্যান জহিরুল হক বলেছেন, সর্বনিম্ন কল রেট বৃদ্ধিতে বিদ্যমান গ্রামীণফোনের ব্যবহারকারীদের ওপর প্রভাব ফেলার সম্ভাবনা নেই, কারণ অপারেটরটি ইতিমধ্যেই সর্বনিম্ন মূল্যের চেয়ে অনেক বেশি চার্জ নিচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *