বাংলাদেশ ও ভারতের ক্রিকেটের মধ্যে অনেক পার্থক্য : জাহানারা

ক্রীড়া ডেস্ক:  এই প্রথম খেলে এসেছেন কোনো ভিনদেশী ক্রিকেট লিগে। তাও আবার ভারতের মতো ক্রিকেট পাগলদের দেশে নারীদের আইপিএলখ্যাত ওমেন্স টি-টোয়েন্টি চ্যালঞ্জের মতো ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগে। গিয়েই বাজিমাৎ করেছেন বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য জাহানারা আলম।

এক সাক্ষাৎকারে জাহানারা বলেন, ‘পেশার দিক থেকে এই টুর্নামেন্ট খেলে অনেক এগিয়েছি। আমার যে চিন্তাধারা ছিল সেটা অনেক বদলে গিয়েছে এই টুর্নামেন্টে।’

বাংলাদেশকে রিপ্রেজেন্ট করতে পারাটাই বড় পাওয়া জানিয়ে জাহানারা বলেন, ‘আমি বাংলাদেশকে রিপ্রেজেন্ট করে এসেছি আইপিএলে গিয়ে, এটাই আমার বড় পাওয়া।’

ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে ক্রিকেটের পার্থক্য কেমন জিজ্ঞেস করলে জাহানারা বলেন, ‘প্রচুর, প্রচুর পার্থক্য, ওদের ঘরোয়া দলের স্ট্রাকচার এতটাই শক্তিশালী যেমন, ওদের অনুর্ধ্ব ১৯ ও অনুর্ধ্ব ২৩ দল আছে, আর জাতীয় দল আছে, যেখানে বিভিন্ন লেভেলে বছরে ছয়টা টুর্নামেন্ট আছে, যার কারণে সহসাই দু-তিনজন নতুন মুখ দেখাই যায়।’

নিজেদের কম খেলার কথা জানিয়ে জাহানারা বলেন, ‘আমি এগারো বছর ক্রিকেট খেলছি, এশিয়া কাপ জিতেছি দশ বছরের মাথায়, এতদিন ধরে খেলে বাইরের একটা লিগে খেলতে পেরেছি। কিন্তু জাতীয় দলের হয়ে যদি বছরে মাত্র একটা বা দুইটা টুর্নামেন্ট থাকে, সেক্ষেত্রে আসলে এভাবে চলতেই থাকবে কেউ বড় স্বপ্ন দেখবে না।’

নারী আইপেইলের ফাইনালে বোলিং দিয়ে হকচকিয়ে দিয়েছিলেন ক্রিকেট বিশ্বকে। ফাইনালে জাহানারার দল ভেলোসিটি খেলতে নামে সুপারনোভার বিপক্ষে। ভেলোসিটি আগে ব্যাট করে ১২২ রানের টার্গেট ছুড়ে দেয়। বোলিংয়েও দুর্দান্ত শুরু করেন জাহানারারা। কিন্তু শেষ বলে গিয়ে হারে ভেলোসিটি।

কিন্তু দুর্দান্ত বোলিং করে আলোচনায় আসে বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দলের এই বোলার। চার ওভার বোলিং করে মাত্র ২১ রান দিয়ে তুলে নিয়েছেন দুই উইকেট। কিন্তু দল হেরে যাওয়াতে আনন্দটা উপভোগ করতে পারেননি এই বোলার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *