হিজাব না পরায় ট্যাক্সি থেকে নামিয়ে দিল চালক

বৈচিত্র ডেস্ক: হিজাব না পরায় মাঝ রাস্তায় ট্যাক্সি থেকে এক নারীকে নামিয়ে দিয়েছে চালক। এ ঘটনায় সমালোচনার ঝড় উঠেছে ইরানে। তবে দেশটির পুলিশ সতর্ক করে দিয়ে বলেছে হিজাবের বিরুদ্ধে কোন প্রকার বিক্ষোভে অংশ নিলে ১০ বছর পর্যন্ত সাজা হতে পারে।

বিবিসির খবরে বলা হয়, ওই নারী টুইটারে ট্যাক্সি চালকের ছবি দিয়ে লেখেন, ‘এই সেই চালক যিনি মাঝ রাস্তায় আমাকে ট্যাক্সি থেকে নামিয়ে দেন’। এরপর থেকে ইরানের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারীরা ‘স্ন্যাপ’ নামে দেশটির জনপ্রিয় ট্যাক্সি অ্যাপ বন্ধের দাবি জানান। কারণ এই অ্যাপ দিয়েই তিনি ট্যাক্সিতে যাতায়াত করছিলেন।

এদিকে পারসিয়ান ভাষায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হ্যাশট্যাগ ‘বয়কট স্ন্যাপ’ চালু করা হয়েছে, যেটা শনিবার থেকে ৬৬ হাজার বারের বেশি ব্যবহার হয়েছে।

স্ন্যাপ অ্যাপ কোম্পানি থেকে অভিযোগকারীর কাছে ক্ষমা চাওয়া হয়েছে। তবে দেশটির রক্ষণশীলরা স্ন্যাপের ক্ষমা চাওয়ার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে কড়া সমালোচনা করেছে।

একজন টুইট করেছেন, ‘ওই নারীর অশালীন আচরণে যদি কোম্পানির ম্যানেজার ক্ষমা চেয়ে থাকেন, তাহলে স্ন্যাপ অ্যাপ বন্ধের পাশাপাশি তাদের ইসলামিক প্যানেল কোডে বিচার করা উচিত। কারণ কোম্পানিটি ওই চালককে শাসানোর মাধ্যমে নারীদের এ ধরণের অশালীনতাকে উস্কে দিয়েছেন।’

ইরানের একটি টেলিভিশন চ্যানেলে সাক্ষাতকারে ট্যাক্সি চালক সায়িদ আবেদ বলেছেন, যদি পুলিশ দেখতো তার যাত্রী হিজাব পরে নেই তাহলে তাকে জরিমানা করতো। তাই তিনি মনে করেন, তিনি যা করেছেন সেটা তার ধর্মীয় দায়িত্ব থেকে করেছেন।

উল্লেখ্য, ১৯৭৯ সালের ইসলামি বিপ্লবের পর ইরানে নারীদের জন্য হিজাব পরা বাধ্যতামূলক করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *