দ্বিতীয় বর্ষে অবিন্তা কবির ফাউন্ডেশন স্কুল

বৈচিত্র ডেস্ক:  প্রতিষ্ঠার দ্বিতীয় বর্ষে পা রাখতে যাচ্ছে অবিন্তা কবির ফাউন্ডেশন স্কুল। ২০১৭ সালে মাত্র ৩৬ জন সুবিধাবঞ্চিত শিশুর ভবিষ্যত উন্নয়ন ও অবিন্তার স্বপ্ন পূরণে যাত্রা শুরু করে স্কুলটি। সাফল্যের দুই বছর পার করার সঙ্গে সঙ্গে বেড়েছে স্কুলটির শিক্ষার্থীর সংখ্যা। সেই সঙ্গে বেড়েছে সুযোগ-সুবিধা, শিক্ষার উপকরণ ও মান।

২০১৭ সালের ৫ জুলাই আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে অবিন্তা কবির ফাউন্ডেশন স্কুল। শুরুতে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল মাত্র ৩৬ জন এবং তাদের সবাই সুবিধাবঞ্চিত কন্যা শিশু। এই স্কুলটির বিশেষত্ব হলো এখানে শিক্ষা নিতে আসা সব শিক্ষার্থীর পরিবারই নিম্নবিত্ত। অভিভাবকের স্বল্প আয়ের জন্য মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত কন্যা শিশুদের ভবিষ্যত্ গড়ে দিতেই কাজ করে যাচ্ছে অবিন্তা ফাউন্ডেশন।

স্কুলটি রাজধানীর পূর্ব ভাটারায় অবস্থিত। স্কুলটি দরিদ্র পরিবারের কন্যা শিশুদের প্রি-কিন্ডার গার্ডেন থেকে তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত পাঠদান করে আসছে। বর্তমানে স্কুলের শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৮০ জন। রয়েছেন ৭ জন শিক্ষক। এই শিশুদের জন্য রয়েছে একটি সমৃদ্ধ গ্রন্থাগার, কম্পিউটার ল্যাব, খেলার ঘর। প্রতিটি শ্রেণিতে মাত্র ১৬ জন করে শিক্ষার্থী রাখা হয়। একই সঙ্গে পড়াশুনার ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হচ্ছে ‘জলি ফনিক্স’ পদ্ধতি। এই পদক্ষেপগুলোর মাধ্যমেই স্কুলটি নিশ্চিত করছে গুণগত শিক্ষা ও দক্ষতা।

প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত বিভিন্ন ধাপে চলে স্কুলটি। এই সময়ের মধ্যেই টিফিনের বিরতি দেওয়া হয় শিক্ষার্থীদের। এ সময় তাদের খাবারের ব্যবস্থাও করে স্কুল কর্তৃপক্ষ। বিরতির পর ৩০ মিনিটের জন্য শিক্ষার্থীদের দেওয়া হয় খেলাধুলার সুযোগ।

প্রতিমাসে একজন শিক্ষার্থীর জন্য এই স্কুলটি বেতন নির্ধারণ করেছে মাত্র ১৫ টাকা। তবে সেই টাকা শিক্ষার্থীরা তাদের শ্রেণিকক্ষে রাখা মাটির ব্যাংকে জমায়। এটি তাদের ভবিষ্যতে সঞ্চয়ী করে তুলবে, এমনটাই আশা করেন স্কুলটির শিক্ষক, শিক্ষিকা ও কর্তৃপক্ষ। বাংলা মাধ্যমের নির্ধারিত কারিকুলামের পাশাপাশি স্কুলটিতে রয়েছে নাচ ও সংগীত শিক্ষাসহ নানা সুবিধা। এছাড়াও শিক্ষার্থীদের স্কুল থেকেই খাবার, পোশাক, বই-খাতা ও শিক্ষাসামগ্রী ইত্যাদি সরবরাহ করা হয়ে থাকে। পাশাপাশি প্রতিমাসে শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে মেডিক্যাল চেক-আপের ব্যবস্থাও।

অবিন্তা কবিরের ইচ্ছা ছিল দেশের সুবিধাবিঞ্চিত শিশুদের পাশে দাঁড়ানোর। তার সেই ইচ্ছাকে পুঁজি করে কার্যক্রম চালাচ্ছে অবিন্তা কবির ফাউন্ডেশন স্কুল, এমনটাই জানান, অবিন্তা কবির ফাউন্ডেশনের অ্যাডুকেশন প্রোগ্রাম অফিসার ও স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা মালিহা আহসান। তিনি বলেন, ‘মাত্র ৩৬ জন সুবিধাবঞ্চিত শিশুকে নিয়ে স্কুলটি শুরু করি। শুরু থেকেই আমাদের লক্ষ্য ছিল উন্নত ও সব ধরনের সুযোগ পাওয়া শিশু আর সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মধ্যকার ব্যবধান দূর করা। আমরা চাই এদের অন্যসব শিক্ষার্থীর মতোই শিক্ষিত ও আত্ম-নির্ভরশীল করে গড়ে তুলতে। যেন তারা ভবিষ্যতে পিছিয়ে না পড়ে।’

উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রের ইমোরি ইউনিভার্সিটির অক্সফোর্ড কলেজের শিক্ষার্থী অবিন্তা কবির। ২০১৬ সালের ১ জুলাই ঢাকায় ফেরার তিন দিন পর গুলশানের হোলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলায় নিহত হন। তার স্মৃতিতেই ২০১৭ সালের ৪ মার্চ প্রতিষ্ঠা করা হয় ‘অবিন্তা কবির ফাউন্ডেশন।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *