ইতালি থেকে ফিরলেন আরও ১৫৫ বাংলাদেশি

বৈচিত্র ডেস্ক : নদী ও পরিবেশ আন্দোলনে যেন কোন স্বাধীনতাবিরোধী দূষিত রক্ত ঢুকতে না পারে সেদিকে দৃষ্টি রাখার আহ্বান জানিয়েছেন নৌ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

আন্তর্জাতিক নদী কৃত্য দিবস উপলক্ষে এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ আহ্বান জানান। শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ নদী বাঁচাও আন্দোলনের আয়োজন করে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, নদী ও আমাদের জলসীমার জন্য জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু যথাযথ পদক্ষেপ নিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধুর দর্শনই আমাদের পাথেয়, আর মুক্তিযুদ্ধ আমাদের আলোর পথ। কিন্তু পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার মধ্য দিয়ে স্বাধীনতাবিরোধীরা আমাদের নদীর প্রবাহকেও থামিয়ে দিয়েছে। জিয়া-এরশাদ-খালেদা কেউ নদী রক্ষায় কোন পদক্ষেপ নেয়নি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় এসেই নদী রক্ষায় পদক্ষেপ নিয়েছেন। কাজেই নদী ও পরিবেশ রক্ষার আন্দোলনে অনেক দেশবিরোধী ঢুকে পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করতে চাইবে। এসব সামাজিক সংগঠনগুলোকে সেদিকে নজর দিতে হবে।

নদী তীরের অবৈধ দখল উচ্ছেদে প্রধানমন্ত্রীর জিরো টলারেন্স নীতির কথা উল্লেখ করে খালিদ মাহমুদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী কাউকে কোন ছাড় দিচ্ছেন না। সরকারের ধারাবাহিকতা থাকলে দেশের সব নদী আবারো জীবন্ত হয়ে উঠবে।

খালিদ বলেন, আওয়ামী লীগ টানা ১১ বছর রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থাকার পর আমরা বলতে পারি, দিন বদলে গেছে। বিএনপির সময় নদীর কথা বলায় অনেককে আত্মগোপনে থাকতে হয়েছে। এখন নদীর কথা বললে আত্মগোপন করতে হয়না; নদী দখলদাররা আত্মগোপনে।

নদী তীরে চলমান উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত থাকবে জানিয়ে তিনি বলেন, কিছু শক্ত স্থাপনা অপসারণ করা দুঃসাধ্য ব্যাপার। কিছু শিল্প প্রতিষ্ঠান অপসারণ করলে আরেক ধরনের সংকট। এজন্য অতীতের বিএনপি-জামায়াতের সরকারের সমালোচনা করে তিনি বলেন, কোন পরিকল্পনা মাফিক বাংলাদেশ এগিয়ে যায়নি।

সাম্প্রতিক করোনা ভাইরাস প্রসঙ্গে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা অনেক দুর্যোগ মোকাবিলা করেছি। ডেঙ্গু, বন্যার মতো করোনা মোকাবিলায়ও আমরা সক্ষম হবো।

সংগঠনের সভাপতি অধ্যাপক মো. আনোয়ার সাদাতের সভাপতিত্বে আরো বক্তৃতা করেন রিভারাইন পিপলের মহাসচিব শেখ রোকন, মাহবুব সিদ্দিকী, প্রকৌশলী মো. লুৎফর রহমান, ড. মহসীন আলী মণ্ডল প্রিন্স, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. আনোয়ার হোসেন প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *