শাকিবের বিরুদ্ধে মামলা

বৈচিত্র রিপোট : চিত্রনায়ক শাকিব খানের বিরুদ্ধে হবিগঞ্জে মামলা দায়েরের সংবাদটি ছিল টক অব দ্য টাউন। বাংলাদেশের প্রায় সব মিডিয়ায় এবং আন্তর্জাতিক কয়েকটি মিডিয়ায় বাংলাদেশের শাকিব খানের বিরুদ্ধে এ মামলার বিষয়ে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে।
ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকায় নায়ক শাকিব খান ও মামলার বাদি ইজাজুল মিয়ার ছবি দিয়ে ‘ফিল্মে তার ফোন নম্বর কেন? ৫০ লাখ টাকার মামলা রাজমিস্ত্রির’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়। এতে বলা হয়, ‘শনির দশা কাটছেই না নায়ক শাকিব খানের’। নায়ক শাকিব খানকে নিয়ে যে মুহূর্তে দেশে-বিদেশে প্রতারণা ও মানহানির অভিযোগে মামলা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা, ঠিক সেই মুহূর্তে তিনি অবস্থান করছেন ভারতের হায়দরাবাদে ‘চালবাজ’ নামে একটি সিনেমার শুটিংয়ে।
হবিগঞ্জের সর্বত্র আলোচনার বিষয়বস্তুতে পরিণত হন নায়ক শাকিব খান। শাকিব খানকে হবিগঞ্জে আসতে হবে কি না, আসতে হলে তার নিরাপত্তা, তদন্তের দায়িত্বপ্রাপ্ত হবিগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা পুলিশের কর্মকর্তা মামলার তদন্তে শাকিব খানের মুখোমুখি হবেন কি না, তদন্ত প্রতিবেদনে কী থাকবে ইত্যাদি আলোচনা ছিল মানুষের মুখে মুখে।
মামলার বাদির কাছে প্রশ্ন ছিল নায়কের বিরুদ্ধে মামলা করা ছাড়া বিকল্প কোনো রাস্তা কি ছিল না? জবাবে মামলার বাদি ইজাজুল মিয়া জানান, অহেতুক ঝামেলা থেকে পরিত্রাণ পেতে এবং তিগ্রস্ত হওয়ায় মামলা করা ছাড়া কোনো উপায় ছিল না। ‘রাজনীতি’ ছবিতে নায়কের মুখে একটি মোবাইল নম্বর উচ্চারিত হওয়ায় প্রতারণার কী আছেÑ এমন প্রশ্নের জবাবে বাদির আইনজীবী অ্যাডভোকেট এম এ মজিদ বলেন, আইনে বলা হয়েছে যে, মিথ্যা বর্ণনার মাধ্যমে প্রতারণা করা একটি অপরাধ।
তিনি বলেন, ‘রাজনীতি’ সিনেমায় নায়ক শাকিব খান নায়িকা অপু বিশ্বাসকে উদ্দেশ করে ‘যেভাবে তুমি জান আমার মোবাইল নম্বর ০১৭১৫-২৯৫২২৬’ বলে যে মোবাইল নম্বরটি বলেছেন সেটি আসলে নায়ক শাকিব খানের নয়। কোনো কিছু আমার না জানার পরও বলা একটি মিথ্যা, এটি একটি প্রতারণা। আর সেই মিথ্যা বলা ও প্রতারণা যদি দেশের শীর্ষ কোনো নায়ক করে থাকেন, যাকে দেশের ও বিদেশের লাখ লাখ মানুষ চিত্রজগতের আইডল হিসেবে মনে করেন, তাহলে তাকে আইনের আওতায় আনার চেষ্টা করা মোটেই দোষের কিছু না। ৪২০ ধারায় অপরাধ প্রমাণিত হলে নায়ককে শাস্তি পেতে হবে।
প্রশ্ন উঠতে পারেন সিনেমায় পরিচালক, প্রযোজকের নির্দেশনা অনুযায়ী শুধু নায়ক-নায়িকারা অভিনয় করেন, সংলাপ বলে থাকেন, তাহলে নায়ক শাকিব খান কিভাবে আসামি হন? অবশ্য মামলায় ‘রাজনীতি’ সিনেমার পরিচালক বুলবুল বিশ্বাস ও প্রযোজক আশফাক আহমেদকেও আসামি করা হয়েছে। পরিচালক ও প্রযোজকের এজেন্ট হিসেবে নায়ক শাকিব খান প্রতারণা করেছেন। এ জন্য নায়ক শাকিব খান অভিযুক্ত হতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *