দেশে ফিরে তারা যা বললেন: নির্মাতা মামুনের মানবপাচার

বিনোদন ডেস্ক :মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আড়ালে মানব পাচারের অভিযোগে বাংলাদেশের চলচ্চিত্র পরিচালক অনন্য মামুনকে গ্রেপ্তার করেছে মালয়েশিয়ান পুলিশ। ‘সিনেমাটিক বাংলাদেশি নাইটস’ অনুষ্ঠানের নামে সেখানে দেশের অনেক তারকা অভিনেতা-অভিনেত্রী ও কণ্ঠশিল্পী ও নাচ-গানের দল নিয়ে অনুষ্ঠান করার পর একদিন পর এই কলঙ্কজনক ঘটনা ঘটল।
অনন্য মামুনের নেতৃত্বে মালয়েশিয়া যান সংগীতশিল্পী আসিফ আকবর, আঁখি আলমগীর, চিত্রনায়িকা আইরিন সুলতানা, মিষ্টি জান্নাত, মিম, স্পর্শিয়া, চিত্রনায়ক নিরব, ইমন, আমান রেজা, সাঞ্জুজন, মডেল ও অভিনয়শিল্পী আনিকা কবির শখ, আশনা হাবিব ভাবনা, কবির তিথি ও গানের দল চিরকুট। অনুষ্ঠানে উপস্থাপক ছিলেন চলচ্চিত্র নির্মাতা দেবাশীষ বিশ্বাস।
পরবর্তী সময়ে তাদের অনেকেই নিজ উদ্যোগে দেশে ফিরে আসেন। দেবাশীষ বিশ্বাস জানান, বড় ধরনের বিপদ থেকে বেঁচে গেছি। বাইরের দেশে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আড়ালে এ ধরনের ঘটনা খুবই দুঃখজনক।
দেশে ফিরে চিত্রনায়িকা আইরিন বলেন, আমি খুব ভালোভাবে ফিরে এসেছি। মালয়েশিয়ায় আমাদের কোনো সমস্যা হয়নি। আমাদের অনুষ্ঠানটিও সুন্দর হয়েছে! কিন্তু যা ঘটেছে প্রথমে আমরা বিষয়টি বুঝতে পারিনি। সকালে ঘটনা জানতে পেরে খারাপ লেগেছে। তবে দেশে আসার জন্য আমাদের টিকেট আগেই করা ছিলো।
মিষ্টি জান্নাত বলেন, অনেক শান্তি নিজ দেশের মাটিতে। কোনো সমস্যা হয়নি। ঘটনাটি আমিও শুনেছি।
মালায়েশিয়া ছাড়ার ঠিক আগে সঙ্গীতশিল্পী আসিফ বলেন, ঢাকা আমায় ডাকছে। গুডবাই পেইনফুল মালয়েশিয়া। ধন্যবাদ বন্ধুরা।
সংগীতশিল্পী এইচএম রানা পুরো ঘটনা ব্যাখা দিয়ে বলেন, আমরা যে অ্যাপার্টমেন্টে ছিলাম সেখানেই ঘটনাটি ঘটে। পুরো ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী আমি। অনন্য মামুন যে এমন একটি ঘটনার সঙ্গে যুক্ত, তার কোনও কিছুই জানতাম না। আমি যে অ্যাপার্টমেন্টে ছিলাম সেখানেই রাখা হয়েছিল পাচার হওয়া মানুষদের। আমি ছিলাম ১৬ তলায়। নানা ঘটনা শেষ করে যখন ১৬তলা থেকে লাগেজ নিয়ে আমাকে একেবারে ভবনের নিচে নিয়ে আসে তারা। তখন দেখি, অনন্য মামুনকে ৭-৮জন পুলিশ ঘিরে আছে। তার হাতে হ্যান্ডকাফ পরানো। মামুন আমাকে দেখে বলেন, ‘রানা ভাই আপনাকে ছেড়ে দিয়েছে!’ আমি বললাম, ‘এসব কী বলেন, আমি এখানে কী জন্য এসেছি? আর এই বিপদেই বা কেন ফেললেন!’ আদম ব্যবসার এ ঘটনা পুরো পরিকল্পিত। এমনকি এখনও মামুনের ফেসবুক চালু।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *